কর্ণফুলীতে এক বছরে ৫০ কোটি টাকার খাস জমি উদ্ধার

ভূমি অফিসের তথ্য বলছে, কর্ণফুলী উপজেলার চারটি ইউনিয়নের পাঁচটি মৌজার মোট ১৮ একর ৩১ শতক সরকারি খাস জমি উদ্ধার করা হয়েছে। ওইসব জমি উদ্ধার করে তাতে লাল পতাকা টাঙিয়ে দেয়া হয়েছে। চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলায় গত এক বছরে অবৈধভাবে প্রভাবশালীদের দখল করে রাখা প্রায় ৫০ কোটি টাকার খাস জমি উদ্ধার করা হয়েছে। ভূমি অফিসের তথ্য বলছে, এতে কর্ণফুলী উপজেলার চারটি ইউনিয়নের পাঁচটি মৌজার মোট ১৮ একর ৩১ শতক সরকারি খাস জমি উদ্ধার করা হয়েছে। ওইসব জমি উদ্ধার করে তাতে লাল পতাকা টাঙিয়ে দেয়া হয়েছে।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামানের নির্দেশনায় এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) তানভীর-আল-নাসীফের তত্ত্বাবধানে এসব অভিযান পরিচালনা করেন কর্ণফুলী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) পিযুষ কুমার চৌধুরী। অভিযান ও উপজেলা ভূমি অফিসের প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, কর্ণফুলী উপজেলায় বিগত ২০২৩ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত এবং চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত খাস জমিগুলো উদ্ধার করা হয়।

প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, কর্ণফুলীর জুলধা, ডাঙ্গারচর, চরলক্ষ্যা (বন্দর) মৌজার বি.এস ১ ও ২ নম্বর দাগে ২ দশমিক ১৬ একর বাঁধ ও নাল শ্রেণির জমি বি.এস. ১ নম্বর খাস খতিয়ানে সরকারের পক্ষে চূড়ান্ত জরিপ ছিল। সরকারি মালিকানাধীন ওই খাস জমি আগে পুকুর ছিল। কিন্তু পুকুরটি দখলে নিয়ে স্থানীয় প্রভাবশালীরা এতদিন মাছ চাষ করে আসছিল। পরে অভিযান চালিয়ে তা উদ্ধার করা হয়।

একইসঙ্গে জুলধা ইউনিয়নের ১ নম্বর খাস খতিয়ানভুক্ত ডাঙ্গারচর মৌজার বি.এস. ২৭৯০, ২৭৮৩, ২৭৮২, ২৭৭৩, ২৭৭৪, ২৭৭৭, ২৭৭৮ নম্বর নাল শ্রেণিভুক্ত দাগের মোট ১১ দশমিক ১৭ একর জমি উদ্ধার করা হয়। এই জমিতেও প্রভাবশালীরা পুকুর খনন করে খামার বাড়ি তৈরি করেছিলেন। আরেক অভিযানে চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের বন্দর মৌজার ১ নম্বর খাস খতিয়ানভুক্ত বি.এস ১২০৯৪, ১২০৯৫ ও ১২০৯৭ পুকুর ও নাল শ্রেণিভুক্ত দাগের মোট ১ দশমিক ৭৩ একর জমি উদ্ধার করা হয়।

বর্তমানে জমিটি অবৈধ দখলমুক্ত করে মাছের পোনা অবমুক্ত করে আখতারুজ্জামান চৌধুরী স্মৃতিপার্ক হিসেবে অর্ন্তভুক্ত করা হয়।

একই প্রক্রিয়ায় পরবর্তীতে বড়উঠান ইউনিয়নের বড়উঠান মৌজার ১ নম্বর খাস খতিয়ানভুক্ত খিলা ও পতিত শ্রেণিভূক্ত বি.এস. ১৫৫৭ ও ১৫৯১ নম্বর দাগের ১ দশমিক ৫৫ একর জমি উদ্ধার করা হয়। ওই জমিতে আগে অবৈধ স্থাপনাসহ মুরগির খামার ছিল। ওই জমি দখলমুক্ত করে সেখানে শিশুপার্ক গড়ে তোলা হয়েছে। ধারাবাহিক অভিযানে চরলক্ষ্যায় ২৮ শতক, শিকলবাহা ইউনিয়নের শিকলবাহা মৌজার উপজেলা ভূমি অফিসের জন্য ৫৭ শতক ও সবশেষ ৮৫ শতক খাস জমি উদ্ধার করেন এসি ল্যান্ড পিযুষ কুমার চৌধুরী।

উদ্ধারকৃত মোট জমির পরিমাণ ১৮ একর ৩১ শতক বলে জানা যায়। এসব জমির বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ৫০ কোটি টাকা।জানতে চাইলে সহকারী কমিশনার (ভূমি) পিযুষ কুমার চৌধুরী বলেন, ‘এতদিন ধরে উদ্ধারকৃত জমিগুলো অবৈধ ব্যক্তিদের দখলে ছিলো। কেউ খামার গড়ে তুলেছিলো। কেউ পুকুর খনন করে মাছ চাষ করে আসছিল। পৃথক অভিযানে উল্লিখিত মৌজার এসব ভূমি উদ্ধার করা হয়। কিছু জমিতে শিশুপার্ক গড়ে তোলা হয়েছে। বাকি জমিতে তফসিল উল্লেখ করে সরকারের নামে সাইনবোর্ড ও লাল পতাকা টাঙানো হয়েছে।’ উদ্ধারকাজ পরিচালনাকালে এসি ল্যান্ডের সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন উপজেলা সার্ভেয়ার, কানুনগো ছাড়াও বড়উঠান, শিকলবাহা, চরলক্ষ্যা ও জুলধা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভূমি সহকারী কর্মকর্তাসহ সিএমপি কর্ণফুলী থানার পুলিশ সদস্যরা।

প্রসঙ্গত, পাঁচটি ইউনিয়ন নিয়ে কর্ণফুলী উপজেলা গঠিত। এর মোট আয়তন ৫৫ দশমিক ৩৬ বর্গকিলোমিটার বা ২১ দশমিক ৩৭ বর্গমাইল।

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে অন্যদের পড়ার সুযোগ করে দিন।

খুলনার সময়

একটি সৃজনশীল সংবাদপত্র

আমাদের ফেসবুক পেজ

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার ,রাত ১০:১৫
  • ১৬ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ১ শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  • ১০ মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন