কালিগঞ্জে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, বোমার আঘাতে ৬ জন গ্রামবাসী আহত!

 হাবিবুল্লাহ বাহার, কালিগঞ্জঃ-
প্রাচীর এবং বাড়ির গেটের তালা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে অস্ত্রের মুখে গৃহকর্তা সহ পরিবারের সদস্যদের এক ঘরে হাত, পা,  মুখ বেঁধে জিম্মি করে নগদ ২ লক্ষ টাকা ৫ ভরি স্বর্ণ সহ ৮ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে ৫/৬ জনের সশস্ত্র ডাকার দলের সদস্যরা। ঘন্টা ব্যাপী ডাকাতি শেষে গৃহকর্তা শাহিনের ডাক-চিৎকারে গ্রামবাসী ধাওয়া করলে সশস্ত্র ডাকাতদের ছোড়া বোমা এবং শাটার গানের গুলিতে ৬ জন গ্রামবাসী আহত হয়েছে। এদের মধ্যে কাজল এবং সাইদুল্লাহ কে রক্তাক্ত গুরুতর আহত আশঙ্কজনক অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে কালীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের স্থানীয় স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্রে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার (২২ মার্চ) রাত আড়াইটা থেকে সাড়ে ৩ টা পর্যন্ত সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার চাম্পাফুল ইউনিয়নের ইউসুফপুর গ্রামের গৃহকর্তা শাহিনুর গাজীর বাড়িতে। ডাকাতদের ছোড়া বোমার আঘাতে গুরুতর আহাতরা হলো  উপজেলার ইউসুফপুর গ্রামের হাফিজুর রহমানের পুত্র কাজল ((৪৪), মাজেদ সরদারের পুত্র সাইদুল্লাহ (২২), শেখ আক্তার হোসেনের জমজ পুত্র এবারের এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে হাসান এবং হোসেন, আব্দুল লতিফের পুত্র রাহাত (১৭),এবং কাউসার এর পুত্র রুবেল হোসেন (১৭)। এদের মধ্যে গুরুতর আহত আশংকা জনক  অবস্থায় কাজল এবং সাইদুল্লাহ কে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে  ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে ভোরে কালিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন এর নেতৃত্বে উপপরিদর্শক শফিকুল ইসলাম, খলিলুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে বেলা ১ টার সময়  পুনারায় কালিগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আমিনুর রহমানের নেতৃত্বে কালিগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন এবং সাতক্ষীরা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল  পরিদর্শন করেন। ইউসুফপুর গ্রামের আব্দুর রহিম গাজীর পুত্র ভুক্তভোগী গৃহকর্তা শাহিনুর রহমান গাজী সাংবাদিকদের জানান, তারাবি নামাজ শেষে প্রতিদিনের ন্যায় খাওয়া-দাওয়া শেষ করে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সবাই ঘুমিয়ে পড়ে। রাত আনুমানিক আড়াইটার সময় প্রথমে বাড়ির পাঁচিলের গেটের তালা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে বাড়ির গেটের তালা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে কারেন্টের সুইচ বন্ধ  করে সোলার লাইট জ্বালিয়ে দেয়। পরে আমাকে ঘুম থেকে তুলে ৫/৬ জনের মুখোশ পরা ডাকাত  দল   অস্ত্রের  আমার কাপড় দিয়ে চোখ , হাত, পা বেঁধে বাড়িতে থাকা আমার বাবা আব্দুর রহিম,  মা খোদেজা বেগম, স্ত্রী জোহরা খাতুন এবং শিশু কন্যা  সেতুসহ  সবাইকে এক ঘরে এনে মাথায় শাটার গান ধরে জিম্মি করে রাখে। পরে আমার নিকট থেকে ঘরের চাবি নিয়ে ঘরে রক্ষিত নগদ ২ লক্ষ টাকা, ১টি  স্বর্ণের হার,১ টি চেন, ১জোড়া   হাতের রুলি, ১ জোড়া কানের দুল,  এবং আংটি ১টি নিয়ে চলে যায়। ওই সময় আমি ডাক চিৎকার দিলে গ্রামবাসী বেরিয়ে এসে ডাকাতদের পিছু  ধাওয়া করলে ওই সময় ডাকাত দলের সদস্যরা শাটার গানের ছোড়া গুলি সহ পরপর ৩ টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটালে ৬ জন গ্রামবাসী আহত হয়। এরমধ্যে গুরুতর আহত অবস্থায় ২ জনকে প্রথমে কালিগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ নিয়ে গেলে ডাক্তাররা অপারগতা প্রকাশ করায় তাদেরকে পরবর্তীতে  সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঘটনাস্থলে তদন্ত কাজে ব্যস্ত থাকায় এখনো পর্যন্ত থানায় কোন অভিযোগ দায়ের হয়নি। অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন জানান বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে তদন্ত শেষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে অন্যদের পড়ার সুযোগ করে দিন।

আমাদের ফেসবুক পেজ

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার ,রাত ৮:৫৩
  • ১৬ জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ১ শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  • ১০ মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন