জাতীয় পার্টি নির্বাচনে থাকবে: জাপা মহাসচিব

জাতীয় পার্টি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু। আজ রোববার বিকেলে বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন। চুন্নু বলেন, ‘দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ভালোভাবে করতে সরকার নির্বাচন কমিশনকে সহযোগিতা করে যাচ্ছে। সেই কারণে আমরা জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে, চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের পক্ষ থেকে আমি জাতীয় পার্টির সব প্রার্থীকে অনুরোধ করব যে, আমরা এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব এবং নির্বাচন যাতে প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হয়, প্রতিযোগিতামূলক হয়—আমরা সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাব।’ তিনি বলেন, ‘আমরা আশাবাদী যে, এই নির্বাচনে মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে গণতন্ত্রকে রক্ষা করার জন্য সাংবিধানিক ধারাবাহিকতাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে মানুষের ভোটে অংশগ্রহণ থাকবে। ‘এই নির্বাচন করার জন্য আমাদের সব প্রার্থীদের আমরা আজকে চিঠি দিচ্ছি এবং আগামী তারা প্রতীক যাতে নেয় সেই লক্ষ্যে তাদের নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে,’ বলেন তিনি। এক প্রশ্নের জবাবে জাতীয় পার্টির মহাসচিব বলেন, ‘আমরা ২৮৩টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব। এসব আসনে যারা নির্বাচন করছে রাজনৈতিক, তাদের সঙ্গে আমাদের একটা সমঝোতা হয়েছে বা হবে এ রকম একটা অবস্থা আছে। তবে নির্বাচনে আমরা যাচ্ছি এটাই হলো বড় কথা।’
এদিকে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন আজ সকাল থেকে বনানীতে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেন জাতীয় পার্টির প্রায় দেড়শ নেতাকর্মী। নির্বাচন বর্জনের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন তারা। নেতাকর্মীদের বিক্ষোভের মধ্যে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে দলের চেয়ারম্যান জি এম কাদের কার্যালয়ে প্রবেশ করেন। এর আগে জাপা মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু, জেপির কো-চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, সালমা ইসলাম ও রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান জাপা কার্যালয়ে পৌঁছান। নেতারা কার্যালয়ে পৌঁছা মাত্রই নেতাকর্মীরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। সকাল থেকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ের ভেতরে ও বাইরে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য অবস্থান নেন।

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে অন্যদের পড়ার সুযোগ করে দিন।

খুলনার সময়

একটি সৃজনশীল সংবাদপত্র

৩ মন্তব্য তে “জাতীয় পার্টি নির্বাচনে থাকবে: জাপা মহাসচিব”