নৌকার সাথে লড়ছে ঈগল

নৌকার সাথে লড়ছে ঈগল

খুলনার সময়: আগামী ৭ জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কে? কাগজে কলমে আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টি যারা লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে লড়ছে। কিন্তু, জাতীয় পার্টি দুইশ’র বেশি আসনে প্রার্থী দিলেও তারা লড়াই করছে হাতেগোনা কয়েকটি আসনে। অধিকাংশ স্থানে জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা নামকাওয়াস্তে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। জাতীয় পার্টির নেতারাই বলছেন, এই নির্বাচনে জয়-পরাজয় নয়, এটি সংবিধান সুরক্ষার নির্বাচন। কাজেই গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখার জন্যই তারা এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে, জয়ের জন্য নয়। ২৬টি আসনে জাতীয় পার্টিকে আওয়ামী লীগ ছেড়ে দিয়েছে। এই আসনগুলোতে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী নেই। আর এ কারণেই জাতীয় পার্টি এবার নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী নয়। তাহলে আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কে? সারা দেশের নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে গত ১৮ ডিসেম্বর। প্রতীক বরাদ্দের পর দেখা গেছে আওয়ামী লীগের অধিকাংশ হেভিওয়েট বিদ্রোহী প্রার্থীরা লড়ছেন ঈগল প্রতীক নিয়ে। বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকাগুলোতে সরেজমিনে অনুসন্ধান করে দেখা গেছে যে, আওয়ামী লীগের প্রায় ৬৫ জন হেভিওয়েট প্রার্থী ঈগল মার্কা নিয়ে লড়াই করছেন। ৩৫ জন করছেন ট্রাক মার্ক নিয়ে, যারা এই নির্বাচনে ইতোমধ্যে সাড়া ফেলেছেন এবং আগামী নির্বাচন উৎসবমুখর অংশগ্রহণমূলক হবে এই সমস্ত বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কারণে। তবে সারা দেশে যারা ঈগল প্রতীক নিয়ে লড়ছেন তারা স্বতন্ত্র হলেও তাদের মধ্যে এক ধরনের তেজীভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তারা নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে বেশ জোরেশোরেই লড়াই করছেন।

ফরিদপুরে নিক্সন চৌধুরী কিংবা ব্যারিস্টার সুমনসহ বহু স্থানে ঈগল প্রতীকের প্রার্থীরা আওয়ামী লীগের সঙ্গে লড়াই জমিয়ে তুলেছেন। আর এ কারণেই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, ভোটের মাঠে নৌকার সাথে আসলে প্রধান লড়াই হচ্ছে ঈগল প্রতীকের। যদিও ঈগল কোন দলীয় প্রতীক নয়। স্বতন্ত্র প্রার্থীদেরকে বিভিন্ন রকম প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে লটারীর মাধ্যমে। প্রতীক বরাদ্দের একটা অদ্ভুত তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় লক্ষ্যণীয় তা হলো, যে সমস্ত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচন করছেন কিন্তু যাদের এলাকায় বেশ শক্তিশালী অবস্থান রয়েছে, তাদের একটি বড় অংশই ঈগল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। আর এর ফলে নৌকার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে নির্বাচনের মাঠে দেখা যাচ্ছে ঈগল প্রতীক। যদিও ঈগল প্রতীকের যারা স্বতন্ত্র প্রার্থী আছেন তাদের একের সঙ্গে অন্যের যোগাযোগ নেই। কিন্তু তারপরও এই স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ভোটের মাঠে একটা বড় ফ্যাক্টর হিসাবে দাঁড়িয়েছেন।

বিভিন্ন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এবার নির্বাচনে সবচেয়ে বড় চমক হবে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। ৬০ থেকে ৭০ টি আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয়ী হলেও অবাক হওয়ার কিছু নাই। এখন পর্যন্ত নির্বাচন কমিশন এবং আওয়ামী লীগ যে অবস্থানে আছে সেই অবস্থানে যদি অনড় থাকে তাহলে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে। এ রকম একটা নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগের বহু প্রার্থীর ভরাডুবি ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। এমনকী অনেক হেভিওয়েট প্রার্থীরাও নির্বাচনে পরাজিত হতে পারে। সেক্ষেত্রে নৌকার পরই যে প্রতীকটি আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি আসন পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে, সেই প্রতীকটি হলো ঈগল প্রতীক। আর ভোটের মাঠে এখন পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে নৌকার সাথে লড়াই হচ্ছে ঈগলের।

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে অন্যদের পড়ার সুযোগ করে দিন।

আমাদের ফেসবুক পেজ

আজকের দিন-তারিখ

  • মঙ্গলবার ,রাত ২:৫৩
  • ১৮ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ৪ আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  • ১২ জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন