ভোমরায় উড়ছে ঈগল

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাতক্ষীরা ২ আসনে ৭ জন প্রার্থীর মধ্যে ২জন প্রার্থী ছাড়া অন্যদের দেখা মিলছে না। বর্তমান এমপি ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ও জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করলেও বাকি ৫ প্রার্থীর প্রচারণা অনেকটা দায়সারা। তবে, মাইকিং ও পোস্টার ব্যানারের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারে ঝড় তুলতে চাইছেন এসব প্রার্থীরা।
নির্বাচনের আর মাত্র ৬ দিন বাকি থাকলেও অনেক ভোটাররা তাদের চেনেন না। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন হাট-বাজার ও চায়ের দোকানে স্বতন্ত্র প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি ও জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী আশরাফুজ্জামান আশুকে নিয়ে আলোচনা চললেও অন্য প্রার্থীদের বিষয়ে অনেকেই খোঁজ-খবর নেন না। এই ২ জন বাদে অন্য প্রার্থীরা তাদের চোখে পড়েনি।
ভোমরা ইউনিয়নের আলিপুর হাটখোলা এলাকার ভোটার আবু হাসান, সামছুর রহমান জানান এই এলাকার মানুষ ঈগল ও লাঙ্গল মার্কার পক্ষে-বিপক্ষে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। শুনেছি আরও নাকি ৫ প্রার্থী দাঁড়িয়েছেন। তাদের আমরা কখনো দেখিনি এবং চিনিও না। হাড়দ্দহা এলাকার গৃহীনি নাজমা খাতুন বলেন, সাতক্ষীরা ২ আসনে আওয়ামী লীগ-বিএনপির কোনো প্রার্থী না থাকায় সাধারণ ভোটাররা ভোট দেবে কিনা সন্দেহ আছে। তবে যারা ভোট দিতে যাবে ঈগল প্রকীকের কথা বেশি শোনা যাচ্ছে। ভোমরা স্থলবন্দর এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা জানান, কোনো প্রার্থীকে খাটো করে দেখার সুযোগ নেই। সকলেই ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চেয়েছেন। অত্যন্ত পরিশ্রম করেছেন। কিন্তু তারপরও ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে যাবেন কি না এসব নিয়ে আলোচনা চলছে। ভোটের সুষ্ট পরিবেশ থাকলে বর্তমান এমপির ঈগল পাখি বিজয়ী হবে।
ভোমরা ইউনিয়নের শ্রীরামপুর, বৈচনা, হাড়দ্দহা, লক্ষীদাড়ী ও নবাতকাটি গ্রামের দল ও মতের ঊর্ধ্বে থাকা সাধারণ ভোটাররা বলছেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি উন্নয়নের কারিগর। তিনি নির্বাচিত হলে সাধারণ মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করতে পারবে। সৃষ্টি হবে নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ। বেকার যুবক ও মহিলারা পাবে কাজের সুযোগ। সেজন্য ভোটারদের পছন্দের শীর্ষে আছেন ঈগল মার্কার প্রার্থী এমপি রবি।
এদিকে, জাতীয় পার্টির মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী আশরাফুজ্জামান আশুর পক্ষে আওয়ামী লীগের কিছু নেতাকর্মী অবস্থান নেওয়ায় সাধারণ ভোটাররা দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ভুগছেন। অনেকেই ভাবছেন, কিছুদিন আগে যেসব আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী এমপি রবির সাথে এক টেবিলে সভা-সমাবেশ করেছে, আজ তারা লাঙ্গলের জন্য ভোট চাইছেন। বিগত ২০১৪ সালের সংসদ নির্বাচনে এই নেতারাই নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মীর মোস্তাক আহমেদ রবির বিপক্ষে বিদ্রোহী প্রার্থী ছাইফুল করিম সাবুর হরিণ প্রতীকে জন্য কাজ করেছিলেন। এখন দেখার বিষয় নির্বাচনের শেষ পর্যন্ত এসব নেতারা কোন পক্ষে থাকেন।

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে অন্যদের পড়ার সুযোগ করে দিন।

খুলনার সময়

একটি সৃজনশীল সংবাদপত্র

ফেসবুক পেজ এ সব খবর

আজকের দিন-তারিখ

  • রবিবার ,বিকাল ৪:৪৪
  • ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ১২ ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  • ১৫ শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন



আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন