লিভার সুস্থ রাখতে করনীয়

লিভার সুস্থ রাখতে করনীয়

স্বাস্থ্য সময়: আমাদের শরীরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর মধ্যে একটি হলো লিভার। এটি হজম, বিপাক এবং রক্তের ডিটক্সিফিকেশনসহ অসংখ্য শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়াগুলোতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। লিভার যেহেতু শরীরকে ডিটক্সিফাই করতে ভূমিকা রাখে, তাই আমাদের শরীরের অভ্যন্তরে যা কিছু পৌঁছায় তা লিভারের স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলে। আর তাই লিভার সুস্থ রাখতে সর্বদা একটি স্বাস্থ্যকর এবং সুষম খাদ্য অনুসরণ করুন এবং নিয়মিত ব্যায়াম করুন। আপনার শরীরের ওজনের দিকে নজর রাখুন। অতিরিক্ত অ্যালকোহল সেবন আপনার লিভার কোষের ক্ষতি করতে পারে, যা লিভার সিরোসিস নামক একটি অবস্থার দিকে পরিচালিত করে। কিছু ওষুধ এবং টক্সিনও আপনার যকৃতের ক্ষতি করতে পারে। ধূমপান এড়িয়ে চলুন এবং প্রতিদিন ভালো ঘুমের চেষ্টা করুন। আর লিভারের ঠিক মতো যত্ন না নিলে ক্ষতি হয়। এমন কিছু অভ্যাস আছে যা লিভারের ক্ষতি করতে পারে। তাই এবার চলুন কোন কোন অভ্যাসে লিভারের ক্ষতি হয়; তা জেনে নিই-

অ্যালকোহল: অতিরিক্ত অ্যালকোহল গ্রহণ লিভারের শরীর থেকে টক্সিন অপসারণের ক্ষমতা হ্রাস করে। এটি লিভারকে প্রধানত অ্যালকোহলকে কম বিষাক্ত আকারে রূপান্তর করার দিকে মনোনিবেশ করতে বাধ্য করবে এবং প্রদাহ এবং ফ্যাটি লিভার রোগের দিকে পরিচালিত করবে।

অতিরিক্ত ওষুধ: অতিরিক্ত মাত্রায় ওষুধ সেবন করলে তা ধীরে ধীরে আপনার লিভারের ক্ষতি করতে পারে এবং মারাত্মক লিভার ফেইলিওর হতে পারে। অ্যাসিটামিনোফেনের উচ্চ মাত্রা, যা সাধারণত প্রেসক্রিপশন ছাড়াই পাওয়া যায়, বেশ কয়েকদিন ধরে ক্রমাগত গ্রহণ করলে লিভারের ক্ষতি হতে পারে।

ধূমপান: সিগারেটে উপস্থিত রাসায়নিকগুলো লিভারে পৌঁছায় এবং অক্সিডেটিভ স্ট্রেস তৈরি করে যা ফ্রি র্যাডিকেল তৈরি করে যা লিভারের কোষগুলিকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। এটি ফাইব্রোসিসও ঘটাবে, একটি প্রক্রিয়া যেখানে লিভার অতিরিক্ত দাগের মতো টিস্যু তৈরি করে।

চর্বি যুক্ত খাদ্য: চর্বি যুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন। চেষ্টা করুন আপনার খাদ্য তালিকায় ফল ও সবজি রাখতে। এগুলো বিটা-ক্যারোটিন, ভিটামিন সি, ভিটামিন ই, জিঙ্ক এবং সেলেনিয়ামের একটি ভাল উৎস, যা আপনার লিভারকে সুস্থ রাখে।

নিদ্রাহীনতা: যখন আমরা ঘুমিয়ে থাকি তখন আমাদের শরীর সাধারণত মেরামত এবং ডিটক্সিফিকেশন মোডে চলে যায়। ঘুমের অভাব লিভারে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস সৃষ্টি করতে পারে। তাই প্রতিদিন নূন্যতম আট ঘণ্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন।

স্থূলতা এবং দুর্বল পুষ্টি: আপনার খাদ্যাভ্যাস সরাসরি আপনার লিভারের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করতে পারে। অনেক বেশি ভুল খাবার খেলে লিভারে চর্বি তৈরি হয়। চর্বি জমে প্রদাহ এবং লিভারের ক্ষতি হতে পারে।

পুষ্টিকর সম্পূরকগুলোর অতিরিক্ত মাত্রা: পুষ্টিকর পরিপূরক এবং কিছু ভেষজ অতিরিক্ত পরিমাণে লিভারের জন্য ক্ষতিকর। ভিটামিন এ-এর অতিরিক্ত মাত্রায় লিভারের ক্ষতি হতে পারে। টিকা গ্রহণ না করা: হেপাটাইটিস একটি প্রধান রোগ যা লিভারকে প্রভাবিত করে। আপনি যদি হেপাটাইটিসের জন্য টিকা গ্রহণ না করেন তবে আপনি আপনার লিভারের স্বাস্থ্যকে ঝুঁকিতে ফেলছেন।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে অন্যদের পড়ার সুযোগ করে দিন।

খুলনার সময়

একটি সৃজনশীল সংবাদপত্র

ফেসবুক পেজ এ সব খবর

আজকের দিন-তারিখ

  • বৃহস্পতিবার ,দুপুর ১:৩৬
  • ৭ ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • ২২ অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  • ২৩ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন



আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন

বাংলা বাংলা English English